For the best experience, open
https://m.kolkata24x7.in
on your mobile browser.
Advertisement

Agnibaan: 'অগ্নিবান' লঞ্চ করল ভারত! জেনে নিন 3D প্রযুক্তিতে তৈরি রকেটে বিশেষ কী রয়েছে

03:38 PM May 30, 2024 IST | Kolkata Desk
agnibaan   অগ্নিবান  লঞ্চ করল ভারত  জেনে নিন 3d প্রযুক্তিতে তৈরি রকেটে বিশেষ কী রয়েছে
Advertisement

Agnibaan Rocket Launch: বেসরকারি খাতে মহাকাশ প্রযুক্তিতে একটি বড় সাফল্য অর্জন করেছে ভারত। চেন্নাই-ভিত্তিক মহাকাশ স্টার্ট-আপ 'অগ্নিকুল কসমস' (Agnikul Cosmos) সফলভাবে অগ্নিবান রকেট উৎক্ষেপণ করেছে (Agnibaan SOrTeD Rocket Launch)। বৃহস্পতিবার সকালে শ্রীহরিকোটার লঞ্চ প্যাড থেকে অগ্নিবানের সাবোরবিটাল টেকনোলজিক্যাল ডেমোনস্ট্রেটর বা SOrTeD মিশন উৎক্ষেপণ করা হয়। দুই দিন আগে কোম্পানিটির উৎক্ষেপণ পিছিয়ে দিতে হয়। অগ্নিকুল কসমস ভারতের দ্বিতীয় বেসরকারী সংস্থা হয়ে উঠেছে।

Advertisement
   

অগ্নিকুলকে অভিনন্দন জানিয়েছে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো)। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে একটি পোস্টে ইসরো জানিয়েছে এটা একটা বড় অর্জন...'

Advertisement

ISRO জানিয়েছে যে এটি একটি সেমি-ক্রায়োজেনিক লিকুইড ইঞ্জিনের প্রথম নিয়ন্ত্রিত ফ্লাইট। এই একক পর্যায়ের রকেটটি 'অগ্নিবান'-এর পূর্বসূরি। কোম্পানির মতে, 'অগ্নিবান' একটি দুই-পর্যায়ের লঞ্চ ভেহিকেল যা অনেকাংশে কাস্টমাইজ করা যায়। 'অগ্নিবান' 300 কেজি ওজন বহন করতে পারে এবং এটি 700 কিলোমিটার কক্ষপথে স্থাপন করতে পারে।

অগ্নিবান: একটি লঞ্চের তিনটি অর্জন
বৃহস্পতিবারের মিশন 'অগ্নিকুল কসমস' তিনটি অর্জন করেছে। প্রথম - একটি ব্যক্তিগত লঞ্চ প্যাড থেকে ভারতের প্রথম উৎক্ষেপণ (ধনুশ নামে শ্রীহরিকোটায় অগ্নিকুল লঞ্চ প্যাড)। দ্বিতীয়ত, দেশের প্রথম সেমি-ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিন-চালিত রকেটের উৎক্ষেপণ এবং তৃতীয়, লঞ্চ ভেহিকেল চালিত করার জন্য প্রথম অভ্যন্তরীণভাবে ডিজাইন করা এবং তৈরি করা একক-পিস 3D-প্রিন্টেড ইঞ্জিনের ব্যবহার।

SOrTeD মিশনের লক্ষ্য
'অগ্নিবান'-এর Suborbital Technology Demonstrator Mission-এর উদ্দেশ্য ছিল একটি পরীক্ষামূলক ফ্লাইট হিসেবে কাজ করা। এটি ছিল অগ্নিকুলের প্রথম ফ্লাইট। এটি ছিল 'অগ্নিবান' সাব-অরবিটাল টেকনোলজি ডেমোনস্ট্রেটর (SOrTeD) চালু করার জন্য অগ্নিকুলের পঞ্চম প্রচেষ্টা। কোম্পানিটি 22 মার্চ থেকে এতে নিযুক্ত ছিল।

এই রকেটে তরল এবং গ্যাস প্রপেলেন্টের মিশ্রণ সহ একটি আধা-ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়। এটি এমন একটি প্রযুক্তি যা ISRO এখনও তার কোনো রকেটে প্রদর্শন করেনি।

Advertisement
Tags :
Advertisement

.